সন্দেশ

কলকাতার সন্দেশ।

সন্দেশ দুধের ছানা দিয়ে তৈরি একধরণের উপাদেয় মিষ্টান্ন। ছানার সাথে চিনি বা গুড় মিশিয়ে ছাঁচে ফেলে সন্দেশ প্রস্তুত করা হয়ে থাকে। খাদ্য উপাদানের দিক থেকে এটি একটি পুষ্টিকর খাবার। বাঙালির উৎসব আয়োজনে এই নকশাদার উপাদেয় খাবারটির ব্যবহার অনেক প্রাচীন কাল থেকেই হয়ে আসছে। বিভিন্ন এলাকার মিষ্টি তৈরির কারিগরেরা এই সন্দেশ তৈরির ব্যাপারটাকে একটা শৈল্পিক ব্যাপারে পরিণত করে ফেলেছে। বাংলাদেশের নাটোর জেলার সন্দেশ (যা কাঁচাগোল্লা নামেই বিশেষভাবে পরিচিত) জনপ্রিয় একটি মিষ্টান্ন।

সন্দেশ হচ্ছে দুধের ছানা এবং চিনি কিংবা গুড় সহযোগে প্রস্তুত একটি বাঙালি মিষ্টান্ন৷[১] কিছু কিছু সন্দেশ তৈরিতে দই কিংবা পনির ব্যবহার করা হয়৷ যেক্ষেত্রে দুধ ফেটিয়ে তা থেকে ঘোল আলাদা করা হয়৷[২]ঢাকা জেলার কিছু কিছু লোক একে প্রানহরা বলে উল্লেখ করে থাকে৷ যা দধি এবং মাওয়া দিয়ে তৈরি এক ধরনের সন্দেশ৷[৩]

ইতিহাস

মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্য কীর্তিবাস রামায়ন এবং চৈতন্যের কবিতায় সন্দেশের উল্লেখ রয়েছে৷ যদিও উল্লেখিত এ মিষ্টান্নটির মূল উপাদান গুলো অজানা৷[৪]এধরনের সন্দেশ বর্তমান সন্দেশ হতে আলাদা৷ কেননা, এধরনের সন্দেশ তৈরি করতে ক্ষীর ব্যবহার করা হত৷[৫][৬] এটি অনুমান করা কঠিন যে ঠিক কখন হতে ক্ষীর সমৃদ্দ সন্দেশের পরিবর্তে ছানা সমৃদ্দ সন্দেশ তৈরি শুরু হয়৷ কিন্তু এটা জানা যায় যে, ১৯ শতকের শেষের অংশ হতে সাধারনভাবে সন্দেশ বুঝাতে ছানার সন্দেশকেই বুঝানো হয়৷[৭][৪]

Other Languages
Ελληνικά: Σαντές (γλυκό)
español: Sandesh
italiano: Sandesh