রাজা সেজোং

রাজা সেজোং
রাজা সেজোং দে ওয়াং
জোসনের রাজা
রাজত্ব ১৪১৮-১৪৫০
রাজ সিংহাসনারোহণ সেপ্টেম্বর ১৮, ১৪১৮(১৪১৮-০৯-১৮) (২১ বছর)
পূর্বসূরী তাইজং(ই বাং-উন
উত্তরসূরী মুঞ্জং (ই হায়াং)
রাজপ্রতিভূ তাইজং সাবেক রাজা হিসাবে (১৪১৮–১৪২২)
মুঞ্জং,সিংহাসনের উত্তরাধিকারী হিসাবে(১৪৪২-১৪৫০)
জন্ম (১৩৯৭-০৫-১৫)মে ১৫, ১৩৯৭
হানসুং, জোসন [১]
মৃত্যু এপ্রিল ৮, ১৪৫০(১৪৫০-০৪-০৮) (৫২ বছর)
হানসুং, জোসনের

রাণী হিসাবে

  • সোহেওন

“রাজ সঙ্গী”

  • হায়-বিন ইয়াং
  • ইয়ং-বিন গাং
  • সিন-বিন কিম
  • গুই০ইন বাক
  • গুই-ইন চ
  • সুক-উই জো
  • সো-ইয়াং হং
  • সুক-উন ই
  • সাং-চিম সং
  • সা-গি চা
উপাসনালয়ের নাম
সেজং
রাজবংশ জিয়ং জু ই
পিতা তাইজং(ই বাং-উন]
মাতা উং ইয়ং, জোসনের
ধর্ম কনফুশিয়ানিজম(দর্শন), পরবর্তিতে বৌদ্ধ ধর্ম

সেজোং দা গ্রেইট(জন্মঃ মে ১৫, ১৩৯৭ – এপ্রিল ৮, ১৪৫০ , রাজত্বকাল ১৪১৮-১৪৫০) ছিলেন কোরিয়ার জোসন রাজবংশের চতুর্থ রাজা। জন্মগ্রহণ করেন পারিবারের দেয়া নাম “ই ড” নামে। তিনি ছিলেন রাজা তেজং এর তৃতীয় ছেলে। তিনি ১৪১৮ সালে সিংহাসন অধিগ্রহণ করেন। তাঁর রাজত্বের প্রথম চার বছর তাইজং শাসনকার্য পরিচালনা করেন এবং এরপর তাঁর শ্বশুর, এবং ঘনিষ্ঠদের হত্যা করা হয়। সেজং কোরিয়ান দর্শনকে চাঙ্গা করে তুলেন এবং প্রধান প্রধান আইন সংশোধন করেন। তিনি কোরিয়ান লিপি “হাঙ্গুল” তৈরি করেন, বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তি অগ্রসরে উৎসাহ প্রধান করেন, এবং জারি প্রকাশ করেন সমৃদ্ধি স্থির ও উন্নতি করতে। তিনি উত্তরে সামরিক অভিযান বরখাস্থ করেন এবং সামিন নীতি জারি করেন যাতে ঔপনিবেশিকরা আকর্ষিত হয়। দক্ষিণে জাপানী আক্রমণকারীদের বশ করেন এবং টুশিমা দ্বীপ দখল করেন। তার রাজত্বের ১৪১৮ থেকে ১৪৫০ এ, শাসক হিসাবে ছিলেন ১৪২২ থেকে ১৪৪২ এবং মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত ১৪৪২ থেকে ১৪৫০ এ তার ছেলে সিংহাসনের উত্তরাধিকারী যুবরাজ মুনজং এর সময়ে শাসনকার্য পরিচালনা করেন। যদিও “দা গ্রেইট”/ "大王" উপাধি গোরিও এবং জোসন রাজবংশের সকল শাসককেই দেয়া হয় কিন্তু এটি গুনাগাত এবং সেজং এর ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।

প্রাথমিক জীবন

সেজং জন্মগ্রহণ করেন ১৩৯৭ সালের ১৫ই মে, রাজা তাইজং এর তৃতীয় ছেলে। যখন তার বয়স বার তখন তিনি যুবরাজ চুংইয়ং হন। [২] তরুণ যুবরাজ হিসাবে সেজং তার বাকি দুই ভাইয়ের চেয়ে বিভিন্ন পড়াশুনায় পারদর্শি হন এবং তার পিতার বিশেষ অধিকারভোগ করেন। তাইজং এর তৃতীয় ছেলে হিসাবে সেজং এর সিংহাসন উত্তরণ ছিল অনন্য। তাইজং এর বড় ছেলে ইয়াংইয়ং কে ১৪০৪ সালে সিংহাসনের উত্তরাধিকারী ঘোষণা করা হয়। কিন্তু ইয়াংইয়ং এর মুক্তমণা এবং শিকারের নেশা ও অবসর সময় কাটানোর ফলে তাকে সিংহাসনের উত্তরাধিকারী থেকে সরানো হয় ১৪১৮ সালে। তাইজং এর দ্বিতীয় ছেলে যুবরাজ হায়রইয়াং তার ছোট ভাই সেজং এর উন্নতির জন্য ভিক্ষু(সন্ন্যাসী) হয়ে যায়। [৩] ইয়াংইয়ংকে সিংহাসনের উত্তরাধিকারী থেকে সরানোর ফলে তাইজং তাড়াতাড়ি তার ছোট ছেলেকে সিংহাসনে বসানো প্রতিয়মান হয়ে উঠে। সরকারী কর্মকর্তাদের সরানো হয় যারা ইয়াংইয়ংকে সরানোর জন্য বিরোধিতা করেছিল। কিন্তু তাইজং এর অবসরের পরও তিনি সরকারের নীতিতে প্রভাব ফেলতে থাকেন। সেজং ১৪২২ সালে তার পিতার মৃত্যুর পরই সিংহাসনে প্রকৃতভাবে অধিগ্রহণ করেন। [৩]

Other Languages
български: Седжон
català: Sejong
Mìng-dĕ̤ng-ngṳ̄: Dièu-siēng Sié-cŭng
čeština: Sedžong Veliký
kaszëbsczi: Sejong Wiôldżi
Deutsch: Sejong
Esperanto: Seĝong
euskara: Sejong Handia
français: Sejong le Grand
Nordfriisk: Sejong (köning)
Հայերեն: Սեջոնգ Մեծ
Bahasa Indonesia: Sejong yang Agung
ქართული: სეჯონ დიდი
қазақша: Ұлы Седжон
한국어: 조선 세종
Latina: Sejong
lietuvių: Sejong
монгол: Сэжун ван
Bahasa Melayu: Sejong Agung
norsk nynorsk: Sejong den store
português: Rei Sejong
Scots: Sejong
සිංහල: මහා සේජොං
Simple English: Sejong the Great
ślůnski: Sejong Wjelgi
Türkçe: Sejong
українська: Седжон Великий
吴语: 朝鮮世宗
中文: 朝鮮世宗
文言: 朝鮮世宗
Bân-lâm-gú: Tiâu-sián Sè-chong
粵語: 李裪